হবিগঞ্জ শহরে টমটম শ্রমিকরা গর্জে উঠেছে-
টমটম মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সাধারণ সভায় এমপি আবু জাহির বললেন- টমটম শ্রমিকদের সকল আইন মেনে চলতে হবে। যানজট সৃষ্টি করা যাবে না। ট্রাফিক পুলিশ কোন টমটম শ্রমিককে অহেতুক হয়রানী করলে আমাকে জানাবেন। টমটমের ভাড়া বাড়াতে হলে সকলের সাথে আলোচনা করে বাড়াতে হবে
টমটম শ্রমিকরা অভিযোগ করে বলেন বিভিন্ন সময় ট্রাফিক সার্জেন্টসহ পুলিশ অহেতুক টমটম আটক করে শ্রমিকদের হয়রানী করেন। পরবর্তীতে উৎকোচ দিয়ে টমটম ছাড়িয়ে আনে শ্রমিকরা
স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ জেলা টমটম (ইজিবাইক) মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার দুপুরে জেলা পরিষদ অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও হবিগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মোঃ আবু জাহির। সংগঠনের সভাপতি এনএম ফজলে রাব্বী রাসেলের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক নূরুল আমীন ভূইয়ার পরিচালনায় সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের জেলা সিনিয়র সহ-সভাপতি আলাই চৌধুরী, মনিরুল আলম বাছির, সাইফুদ্দিন জাবেদ, সিজিল মিয়া, উজ্জল আহমেদ, শাহীন মিয়া, সামছু মিয়া, আমজাদ হোসেন প্রমূখ।
সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমপি আবু জাহির বলেন- টমটম শ্রমিকদের সকল আইন মেনে চলাচল করতে হবে। শহরের কোথাও যানজট সৃষ্টি করা যাবে না। তিনি বলেন- কোন টমটম শ্রমিককে ট্রাফিক পুলিশ অহেতুক হয়রানী করতে পারবে না। যদি অহেতুক কোন ট্রাফিক সার্জেন্ট হয়রানী করে তাহলে তাৎক্ষনিক আমাকে জানাবেন। আমি এ বিষয়টি দেখবো। সভায় শ্রমিকরা টমটম ভাড়া বৃদ্ধির কথা বললে এমপি আবু জাহির বলেন-সবকিছুর দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। টমটম ভাড়াও বাড়তে পারে। তবে জনগণের উপর যাতে প্রভাব না পড়ে, সেদিক লক্ষ্য রেখেই সকলের সাথে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে ভাড়া বাড়াতে হবে। সভায় এমপি আবু জাহির বলেন শ্রমিকদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ করে তুলে টমটম পরিবহনকে জনপ্রিয় যানবাহন হিসেবে জনগণের কাছে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। কোথাও যথযথ টমটম পার্কিং ও অভারটেক করে যানজট সৃষ্টি না করার জন্য শ্রমিকদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন- টমটম মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের উদ্যোগে প্রতিটি পয়েন্টে চেকার নিয়োগ করে শহরকে যানজট মুক্ত রাখতে হবে। টমটম পরিহনের মাধ্যমে সমাজে অর্ধ শিক্ষিত যুবকদের বেকারত্ব দূর হয়েছে। এ সংগঠনের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ সকল নেতাকর্মীরা প্রতিষ্ঠিত। আমি মনে করি তাদের নেতৃত্বে শ্রমিকরা শৃঙ্খলা মতো চলবেন।
সভায় টমটম শ্রমিকরা বলেন- বিভিন্ন সময় ট্রাফিক সার্জেন্টসহ পুলিশ অহেতুক টমটম আটক করে শ্রমিকদের হয়রানী করেন। পরবর্তীতে উৎকোচ দিয়ে টমটম পরিবহন ছাড়িয়ে আনে শ্রমিকরা। আমরা ট্রাফিক পুলিশের নির্যাতন বন্ধের দাবি জানাচ্ছি। শ্রমিকরা আরো বলেন- বর্তমানে যে ভাড়া শ্রমিকরা নিচ্ছেন তা দিয়ে তাদের সংসার চালানো খুবই কঠিন। তাই শহরে টমটম ভাড়া বৃদ্ধি করার জন্য নেতৃবৃন্দ দাবি জানান। সভায় সংগঠনের সভাপতি এনএম ফজলে রাব্বী রাসেল বলেন- আমি মালিক শ্রমিকদের সুখে দুঃখে সময় পাশে আছি এবং ভবিষ্যতে পাশে থাকবো। মালিক শ্রমিকদের ন্যায্য দাবি আদায়ের জন্য সকলের সাথে আন্দোলন সংগ্রাম করে যাবো। তিনি বলেন ভাড়া বৃদ্ধির বিষয় নিয়ে পৌর মেয়রসহ হবিগঞ্জের সুশীল সমাজের সাথে আলোচনা করবো। তাদের পরামর্শ অনুযায়ীই ভাড়া বৃদ্ধি করা হবে এবং তা দ্রুত বাস্তবায়ন করা হবে।
সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক নূরুল আমীন ভূইয়া বলেন- গত বছরের ২১ নভেম্বর সংগঠনের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকেই মালিক শ্রমিকদের ন্যায্য দাবিগুলো আদায় করার লক্ষে রাজপথে থেকে আন্দোলন সংগ্রাম করে বিভিন্ন সময় নির্যাতন নিপীড়ন সহ্য করেও মালিক-শ্রমিকদের পাশে রয়েছি এবং ভবিষ্যতেও পাশে থাকবো। তিনি বলেন- ট্রাফিক পুলিশ যদি আর কোন ধরণের মালিক-শ্রমিকদের উপর অন্যায় নির্যাতন করেন তাহলে অনির্দিষ্টকালের অবরোধ দিয়ে হবিগঞ্জ জেলাকে অচল করে দেয়া হবে। তবে শ্রমিকদের ট্রাফিক আইন মেনে চলতে হবে। সংগঠনের সিনিয়র সহ-সভাপতি আলাই চৌধুরী বলেন- টমটম মালিক শ্রমিকদের উপর ট্রাফিক পুলিশের নির্যাতন ও নিপীড়ন আর মেনে নেয়া হবে না। ট্রাফিক পুলিশ যদি কোন মালিক শ্রমিককে অহেতুক নির্যাতন করে তাহলে তীব্র আন্দোলন গড়ে তুলে এর দাঁত ভাঙ্গা জবাব দেয়া হবে।

-
প্রথম পাতা