জন্মদিনে তৃণমূল মানুষের শুভেচ্ছায় সিক্ত হলেন এমপি কেয়া চৌধুরী-
তৃণমূল লোকেরা উদ্যোগ নিয়ে সভা করে এমপি কেয়া চৌধুরীর জন্মদিন পালন করেছে। বুধবার পৃথক সময়ে জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার পানিউমদা ইউনিয়নের ইলামপুর ও শংকরপুর গ্রামে তৃণমূল লোকেরা এ জন্মদিন পালনের আয়োজন করেন। শংকরপুর ও ইলামপুর গ্রাম পরিদর্শন শেষে এ আয়োজনস্থলে উপস্থিত হয়ে এমপি কেয়া চৌধুরী সবাইকে নিয়ে জন্মদিনের কেক কাটেন।
এসময় জন্মদিনের আয়োজন জনসভায় রূপধারণ করে। লোকজনের ভালবাসায় মুগ্ধ হন এমপি কেয়া চৌধুরী। জন্মদিনের এ সভায় বক্তব্যে এমপি কেয়া চৌধুরী বলেন, লোকজন আমাকে এত ভালবাসে। এ আয়োজন দেখে আমার কি যে ভাল লেগেছে, তা ভাষায় প্রকাশ করতে পারব না। আমি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের সৈনিক। জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র নেতৃত্বে আমি নবীগঞ্জ-বাহুবলের তৃণমূল লোকজনের কাছে এসে সেবামূলক উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালনা করছি। এমপি কেয়া চৌধুরী বলেন, আমি মানুষের কাছে আসছি। তাদের কথা শ্রবণ করছি। তৃণমূলের চাহিদা অনুযায়ী উন্নয়ন কাজে একের পর এক বরাদ্দ প্রদান করছি। এসব বরাদ্দ জননেত্রীর উপহার। পরে তিনি গজনাইপুর ইউনিয়নের ফুলতলী বাজারে পথসভায় মিলিত হন। এসভায় বক্তব্যে এমপি কেয়া চৌধুরী বলেন, আপনাদের দোয়া ও ভালবাসা পাচ্ছি বলেই ষড়যন্ত্রকারীরা আমাকে কোনো কিছু করতে পারছে না। আমি আপনাদের নিয়ে ষড়যন্ত্রকারীদের মোকাবেলা করতে প্রস্তুত। আসুক তারা। আমি মরতে ভয় পাই না। জননেত্রী আমাকে মানুষের কল্যাণে কাজ করতে পাঠিছেন। আমি নেত্রীর নির্দেশ পালন করছি। সভায় ফুলতলী বাজারে একটি পাবলিক টয়লেটের দেওয়ার কথা বলেছেন এমপি কেয়া চৌধুরী। এ সভায় উপস্থিত লোকেরা এমপি কেয়া চৌধুরীকে আগামী নির্বাচনে নৌকার টিকিট নিয়ে আসার আহবান জানিয়েছেন। ফুলতলী বাজারের সভায় উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ইমদাদুল রহমান মুকুলসহ উপজেলা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ, ব্যবসায়ী ও মেহনতি শত শত লোক উপস্থিত ছিলেন। এদিকে এমপি কেয়া চৌধুরীর জন্মদিন উপলক্ষে দলে দলে আওয়ামী পরিবারের নেতাকর্মী, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনসহ তৃণমূলের লোকেরা বাসায় এসে এমপি কেয়া চৌধুরীর সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

-