মোটর সাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত জিসানের দাফন ॥ ট্রাকচালক জামাল কারাগারে-
মৃত্যুর কয়েক দিন পূর্বে জিসান তার ফেসবুক আইডিতে লিখেছিল একটি বাইকের জন্য একটি ছেলে কেঁদেছিল। আর সবাই হেসেছিল। আজ সবাই বাইক নিয়ে বসে আছে। কিন্তু ছেলেটি আর নেই
এসএম সুরুজ আলী ॥ হবিগঞ্জ শহরে বালু বোঝাই ট্রাকের চাপায় মোটর সাইকেল আরোহী নবম শ্রেণীর ছাত্র জিসান আহমেদ নিহত হওয়ার ঘটনায় আটক ট্রাক চালক জামাল মিয়াকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। গতকাল দুপুরে নিহতের বাবা আব্দুস শহীদের দায়েরকৃত মামলায় পুলিশ তাকে কারাগারে প্রেরণ করে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মোঃ শাহিদ মিয়া জানান, নিহত জিসানের বাবা আব্দুস শহীদ বেপরোয়া গাড়ি চালনোর অপরাধ ও ক্ষয়ক্ষতি আইনে মামলাটি দায়ের করেন। এছাড়াও ট্রাক চালক জামাল মিয়া দুর্ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। আটক ট্রাক পুলিশের হেফাজতে রয়েছে। এদিকে মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে চৌধুরী বাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে নিহত জিসানের লাশের জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। জানাজার নামাজের পূর্বে চৌধুরী বাজার কেন্দ্রীয় সুন্নী জামে মসজিদের ইমাম আলহাজ্ব আব্দুল মজিদ পিরিজপুরী বলেন- জিসান অত্যন্ত ভাল ছেলে ছিল। এ বয়সে সে আমার সাথে ৩ বার রমজানে এতেকাফ পালন করেছে। এছাড়া ওয়াক্তের নামাজ আদায় করে আসছিল। তার এ ধরণের মৃত্যু মেনে নেয়া কষ্টকর। আমরা তার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি। জানাজার নামাজ শেষে নোয়াবাদের পারিবারিক কবর স্থানে তার লাশের দাফন সম্পন্ন করা হয়। এদিকে একমাত্র পুত্র জিসানকে হারিয়ে গতকাল দিনভর তার মা-বাবা কান্নাকাটি করেছেন।
নিহত জিসানের ফেসবুক স্ট্যাটাস ঃ মৃত্যুর কয়েক দিন পূর্বে জিসান তার ফেসবুক আইডিতে স্ট্যাটাসে লিখেন একটি বাইকের জন্য একটি ছেলে কেঁদেছিল। আর সবাই হেসেছিল। আজ সবাই বাইক নিয়ে বসে আছে। কিন্তু ছেলেটি আর নেই। জিসানের চাচা শেখ সেলিম বলেন- আমার ভাতিজা জিসানের এই স্ট্যাটাসটা যে এভাবে সত্যি হবে কেউ ভাবেননি।
উল্লেখ্য, মঙ্গলবার বেলা ৩টার দিকে হবিগঞ্জ শহরের নোয়াবাদ এলাকার বাসিন্দা আব্দুস শহীদের ছেলে জিসান আহমেদ শহরের রাজনগর এলাকায় মোটর সাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত হয়।
-