জেলার পর্যটন শিল্পের বিকাশ ও পরিবেশ রক্ষায় পাহাড়কে সংরক্ষণ করতে হবে-
হবিগঞ্জে আদিবাসী সমাজ উন্নয়ন সংস্থার সভায় জেলা প্রশাসক
মোঃ মামুন চৌধুরী ॥ ১৩ নভেম্বর সোমবার সকাল ১০টা। হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে আদিবাসী ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর লোকেরা একে একে উপস্থিত হচ্ছেন। উপলক্ষ্য হবিগঞ্জের পাহাড়ি আদিবাসী ও চা জনগোষ্ঠীর মানবাধিকার ও আর্থসামাজিক উন্নয়ন বিষয়ক আলোচনা সভা। সভায় উপস্থিতি প্রায় সন্তোষজনক। এর কিছুক্ষণের মধ্যে সম্মেলন কক্ষে উপস্থিত হন জেলা প্রশাসক মনীষ চাকমা। শুরু হয় সভা। এরই মধ্যেও আরো বেশ কয়েকজন সভায় যোগদান করেন। পাহাড়ি জনপদে বসবাসকারী লোকজন একে একে তাদের মনের কথা প্রকাশ করেন। মনযোগ সহকারে তা শ্রবণ করেন জেলা প্রশাসক মনীষ চাকমা। সাথে সাথে তিনি তাদের প্রশ্নের উত্তর দেন। সকাল থেকে একটানা দুপুর পর্যন্ত চলে এ সভা। এতে আদিবাসী ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর লোকজন সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, এর আগে কোন জেলা প্রশাসক এমনভাবে নিজ সম্মেলন কক্ষে এনে আমাদের কথা শ্রবণ করেননি। সভায় আমাদের বর্তমান অবস্থা উপস্থাপন করেছি। তা শুনে সমাধান কল্পে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিয়েছেন জেলা প্রশাসক। এতে আমরা ধন্য হয়েছি।
হবিগঞ্জ আদিবাসী সমাজ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত এ সভায় বক্তৃতা করেন, হবিগঞ্জ আদিবাসী সমাজ উন্নয়ন সংস্থার সভাপতি চা শ্রমিক নেতা স্বপন কুমার সাঁওতাল, সাধারণ সম্পাদক কাঞ্চন পাত্র, চা শ্রমিক নেতা যুবরাজ জরা, সাতছড়ি ত্রিপুরা পল্লীর হেডম্যান চিত্তরঞ্জন দেববর্মা, কালেঙ্গার কালিয়াবাড়ি আদিবাসী পুঞ্জির হেডম্যান বিনয় দেববর্মা, কৃষ্ণছড়া আদিবাসী পুঞ্জির হেডম্যান উমেশ খারিয়া, চা শ্রমিক নেতা নৃপেন চাষা প্রমুখ।
সভায় জেলা প্রশাসক মনীষ চাকমা বলেন, এ জেলার পর্যটন শিল্পের বিকাশ ও পরিবেশ রক্ষায় পাহাড়কে সংরক্ষণ করতে হবে। পাহাড়ী জনগোষ্ঠীর শিক্ষা ও স্বাস্থ্য সেবার উন্নয়নে বিশেষ নজর দেয়া হবে। পাহাড়ী জনগোষ্ঠীর সমস্যা চিহ্নিত করে পর্যায়ক্রমে তা সমাধান করার চেষ্টা করছি।
এ সভায় এটিএন বাংলার জেলা প্রতিনিধি আব্দুল হালিম, হবিগঞ্জ অনলাইন প্রেসক্লাব সভাপতি রফিকুল হাসান চৌধুরী তুহিন, সময় টিভি জেলা প্রতিনিধি রাশেদ আহমদ খান, দৈনিক জনতা প্রতিনিধি ডাঃ আব্দুল জলিল, দৈনিক কালবেলা জেলা প্রতিনিধি মোঃ মামুন চৌধুরীসহ আদিবাসী ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর নেতৃবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন।
-
প্রথম পাতা