মাধবপুরে শিশু শাহপরাণের খুনিদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ-
আলাউদ্দিন আল রনি, মাধবপুর থেকে ॥ মাধবপুর উপজেলার বাঘাসুরা ইউনিয়নের শিবজয়নগর গ্রামের ১ম শ্রেণীর ছাত্র শাহ পরানের খুনিদের ফাঁসির দাবিতে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সাতপাড়িয়া এলাকায় মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে বিক্ষুব্ধ জনতা। শনিবার সকালে ওই এলাকার হাজার হাজার নারী-পুরুষ ও শিশুরা প্রচন্ড শীত উপেক্ষা করে মানববন্ধনে অংশগ্রহন করেন। মানববন্ধন শেষে শাহপুর বাজারে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বাঘাসুরা ইউপি চেয়ারম্যান সাহাবউদ্দিন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের হাজী সামসু মিয়া তালুকদার, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ওয়াসিম তালুকদার, সামছুল আলম মেম্বার, রশিদ মিয়া মেম্বার, আবু কালাম মেম্বার, চান মিয়া সর্দার, জাহিদ মিয়া, নানু সর্দার, জসিম উদ্দিন, আজাহার মিয়া প্রমূখ।
উল্লেখ্য, শিবজয়নগর গ্রামের তাউস মিয়ার ছেলে জালাল মিয়া (২৫) ও তার সহযোগী বড়লেখা উপজেলার চাঁন গ্রাম ওরপে আকুলনগরের মোহাম্মদ আলীর ছেলে রাসেল মিয়া (২৫) ওরপে কোপা রাসেল ৬ জানুয়ারি রাত প্রায় ৭টার দিকে সাতপাড়িয়ার একটি দোকানের সামনে থেকে কৌশলে একই গ্রামের মোঃ সাবাস মিয়ার ছেলে মোঃ শাহপরানকে অপহরণ করে গ্রামের পাশে মাঠে নিয়ে যায়। কিন্তু শাহপরান অপহরণকারী জালালকে চিনে ফেলায় দুর্বৃত্তরা তাকে গলা টিপে হত্যা করে লাশ ডোবার পানির নিচে ঝোপঝাড়ে লুকিয়ে রাখে। পরে জালাল বাড়িতে চলে যায় এবং রাসেল হেঁটে দরগা গেইট গিয়ে গাড়িতে উঠে বড়লেখা চলে যায়। পরদিন সকালে জালাল বড়লেখা গিয়ে রাসেলের সঙ্গে মিলিত হয়ে শাহপরানের বাবার কাছে মোবাইল ফোনে দুই লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। এরই মধ্যে ৭ জানুয়ারি শাহপরানের পিতা সাবাস মিয়া থানায় পুত্র নিখোঁজের জিডি করেন। জিডিতে উল্লেখিত মোবাইল ফোন নাম্বার ট্রেকিং করে থানার এস.আই মমিনুল ইসলাম ৯ জানুয়ারি ভোররাতে জালাল মিয়া ও রাসেল মিয়াকে বড়লেখা থেকে গ্রেফতার করেন। গ্রেফতারকৃতদের দেখানো মতে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শিবজয়নগরের একটি ডোবার পানির নিচে ঝোপঝাড়ের ভেতর থেকে শাহপরানের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। বুধবার সকালে ময়নাতদন্ত শেষে পুলিশ শাহপরানের লাশ পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করেন। এ ব্যাপারে শাহপরানের পিতা বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেন। পরদিন ১০ জানুয়ারি সন্ধ্যায় হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ তৌহিদুল ইসলামের আদালতে ঘাতক রাসেল ও জালাল এ হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি প্রদান করে।

-