বানিয়াচংয়ে রাতের আধারে কালীমন্দির ভাংচুর ॥ সন্দেহভাজন দুজন গ্রেফতার-
তোফায়েল রেজা সোহেল, বানিয়াচং থেকে ॥ বানিয়াচং উপজেলার সুজাতপুর ইউনিয়নের আতরপুর কালিমন্দিরে ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। বুধবার রাতের কোন এক সময় দুর্বৃত্তরা এই ভাংচুর চালায়। এর সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ দুই জনকে আটক করেছে। আটককৃতরা হলেন শুভংপুর গ্রামের কালাই মিয়ার ছেলে জাক্কু মিয়া (৩৫) ও একই গ্রামের মৃত আরজু মিয়ার ছেলে নাজু মিয়া (৪০)। বৃহস্পতিবার বিকালে নিজ নিজ বাড়ি থেকে তাদেরকে আটক করা হয়।
এদিকে আটক নাজু মিয়াকে প্রধান আসামী করে ৮ থেকে ১০ জনের বিরুদ্ধে বানিয়াচং থানায় লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে মন্দির কমিটির সভাপতি মহাপ্রভূ দাস বানিয়াচং থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। 
জানা গেছে, বুধবার রাতে কে বা কারা মন্দিরের দরজা-জানালাসহ ৫টি মূর্তি ভাংচুর করে। মাটির তৈরি মূর্তির মাথা ভেঙ্গে পাশের খাদে ফেলে দেয়া হয়। মন্দির ঘরের সাজসজ্জাও তছনছ করে দুর্বৃত্তরা। সকালে মন্দিরে পূজা দিতে গেলে মন্দিরসহ মূর্তি ভাংচুর দেখেন পুজারীরা। ঘটনার খবর পেয়ে হবিগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শৈলেন চাকমা ও বানিয়াচং থানার ওসি মোজাম্মেল হক ঘটনাস্থলে যান। এ সময় পুলিশ মন্দিরের পার্শ্ববর্তী শুভংপুর গ্রামের জাক্কু মিয়া ও নাজু মিয়াকে আটক করে।
স্থানীয়রা জানান, মন্দিরের ভূমি নিয়ে জাক্কু মিয়াগং এর সঙ্গে মন্দির কমিটির লোকজনের বিরোধ চলে আসছে। বুধবার দিনের বেলা মন্দিরের সামনের জায়গায় ডেকো মেশিন দ্বারা মাটি ভরাট করতে যান জাক্কু মিয়া। এসময় মন্দির কমিটির সভাপতি মহাপ্রভূ দাসসহ আতরপুর গ্রামবাসী মাটি ভরাটে বাধা দেন।
সুজাতপুর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মোহাম্মদ আলআমিন জানান, মন্দিরে ভাংচুরের দুজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেফতারে পুলিশের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

-