ডাঃ জমির আলীর দানকৃত জায়গায় রোটারী স্কুল প্রতিষ্ঠায় সহযোগিতার আশ্বাস দিলেন শিক্ষা কর্মকর্তা-
এসএম সুরুজ আলী ॥ রোটারী স্কুল প্রতিষ্ঠায় ধারণা প্রদান ও সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন হবিগঞ্জ সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ জিয়া উদ্দিন। গতকাল সন্ধ্যায় শহরের আমিরচাঁন কমপ্লেক্সের হলরুমে রোটারী ক্লাব অব হবিগঞ্জ সেন্ট্রালের ২০১৮-১৯ মেয়াদের নতুন কমিটির দ্বিতীয় সাপ্তাহিক সভায় তিনি এ সহযোগিতার আশ্বাস দেন। শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ জিয়া উদ্দিন বলেন- ডাঃ জমির আলী রোটারী হাইস্কুল প্রতিষ্ঠায় নিজের জমি দান করার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সেটি অত্যন্ত মহতি উদ্যোগ। এ উদ্যোগকে আমি স্বাগত জানাই। কিন্তু স্কুল প্রতিষ্ঠায় সরকারের অনেক নিয়মনীতি আছে। সেগুলো মেনেই স্কুল প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। তিনি আরো বলেন- বাংলাদেশে অনেক উপজেলা রয়েছে যেখানে ১শ’ থেকে দেড়শ কিংবা ২শ’ হাইস্কুল রয়েছে। সেই তুলনায় বৃহত্তর সিলেট বিভাগের ৪ জেলায় হাইস্কুলসহ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অনেক কম। শিক্ষার মানোন্নয়ন করতে হলে শিক্ষানুরাগীদের ও সমাজসেবীদের এগিয়ে আসতে হবে। তবে বেসরকারি হাইস্কুল প্রতিষ্ঠা করতে হলে সরকারের অনেক নিয়মনীতি মানতে হয়। পৌর এলাকায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (হাইস্কুল) প্রতিষ্ঠিত করতে হলে ৫০ শতাংশ জায়গা প্রয়োজন। পৌরসভার বাইরে হলে ৭৫ শতাংশ জায়গা লাগবে। আর ব্যক্তি নামে স্কুল প্রতিষ্ঠিত করতে হলে সরকারের তহবিলে প্রথমে ২০ লাখ টাকা জমা দিতে হবে। যেহেতু রোটারী স্কুল সংগঠনের নামে প্রতিষ্ঠিত হবে সেটি প্রতিষ্ঠা বা অনুমোদন আনতে সহজ হবে। সেক্ষেত্রে সব ধরণের সহযোগিতা করার আশ্বাস দেন তিনি। শিক্ষা কর্মকতা জিয়া উদ্দিন আরো বলেন- এমপি অ্যাডভোকেট মোঃ আবু জাহিরের প্রচেষ্টায় হবিগঞ্জ সদর উপজেলায় আরো ৬টি হাইস্কুল পাঠদানের অনুমোদন পেয়েছে।
রোটারী ক্লাব অব হবিগঞ্জ সেন্ট্রালের প্রেসিডেন্ট বিশিষ্ট সাংবাদিক রোটারিয়ান হারুনুর রশিদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং সেক্রেটারী রোটারিয়ান মোহাম্মদ জাহেদুল ইসলামের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তৃতা করেন ও উপস্থিত ছিলেন রোটারিয়ান ডাঃ মোঃ জমির আলী, আইপিপি রোটারিয়ান শরীফ উল্লাহ, পিপি রোটারিয়ান তবারক এ লস্কর, রোটারিয়ান সিরাজুল ইসলাম, ডাক্তার সৈয়দ মুজিবুর রহমান পলাশ, রোটারিয়ান তজম্মুল হক চৌধুরী, রোটারিয়ান মনির হোসেন, অ্যাডভোকেট শাহ ফখরুজ্জামান, রোটারিয়ান মিজানুর রহমান মিজান, রোটারিয়ান নুরউদ্দিন জাহাঙ্গীর, রোটারিয়ান হাফিজুর রহমান, রোটারিয়ান নোমান খান, রোটারিয়ান তাহমিনা বেগম গিনি, রোটারিয়ান সৈয়দ নজরুল হাসান, রোটারিয়ান প্রভাষক আয়ূব আলী, রোটারিয়ান ইশতিয়াক আহমেদ তরফদার কল্লোল, রোটারিয়ান প্রকৌশলী মোঃ শহিদুল হক, রোটারিয়ান অ্যাডভোকেট ইকবাল ভূইয়া, রোটারিয়ান শাহ মোঃ আরজু মিয়া প্রমূখ।
সভায় রোটারিয়ান ডাঃ মোঃ জমির আলী বলেন, রোটারী স্কুলের মাধ্যমে ভারতে শিক্ষার দিক অনেকটা এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা কেন কয়েকটি গাছ লাগানোর মাধ্যমে আমাদের কার্যক্রম সীমাবদ্ধ রাখবো। রোটারী স্কুল প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে দেশকে যেমন শিক্ষাক্ষেত্রে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যাবে, তেমনি রোটারী ক্লাব অব হবিগঞ্জ সেন্ট্রালের কার্যক্রম ও সুনাম বৃদ্ধি পাবে।
সভাপতির বক্তৃতায় রোটারিয়ান হারুনুর রশিদ চৌধুরী ডাঃ জমির আলীর দানকৃত জায়গায় রোটারী ক্লাব অব হবিগঞ্জ সেন্ট্রালের উদ্যোগে রোটারী স্কুল প্রতিষ্ঠায় উপস্থিত সকল রোটারিয়ানের মতামত চাইলে সকলেই একযোগে স্কুল প্রতিষ্ঠায় উদ্যোগ নিতে একমত পোষন করেন।
রোটারিয়ান তজম্মুল হক চৌধুরী বলেন- রোটারী স্কুল প্রতিষ্ঠা করতে জায়গা সরেজমিনে পরিদর্শন করে বাস্তবতা যাচাই করে পরবর্তী পদক্ষেপ নিতে হবে।
সভায় আইপিপি রোটারিয়ান শরীফ উল্লাহ জানান, রোটারী ক্লাব অব হবিগঞ্জ সেন্ট্রালের প্রশংসনীয় কার্যক্রমের কারণে রোটারী ডিস্ট্রিক্ট থেকে তাকে এওয়ার্ড প্রদান করা হয়েছে। তিনি ক্লাবের প্রেসিডেন্ট হারুনুর রশিদ চৌধুরীর কাছে তার এওয়ার্ডটি তুলে দেন ক্লাবে সংরক্ষণের জন্য।
সভায় রোটারিয়ান তবারক এ লস্কর, রোটারিয়ান হাফিজুর রহমান ও মনির হোসেনের বিবাহ বার্ষিকী উপলক্ষে ক্লাবের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা জানানো হয়। এছাড়া রোটারিয়ান ইশতিয়াক আহমেদ কল্লোলকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানানো হয়। সভায় গেস্ট স্পিকার হবিগঞ্জ সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জিয়া উদ্দিনকে ক্লাবের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়।
-
শেষ পাতা