হবিগঞ্জ শহরে একের পর এক চুরির ঘটনায় ৩ চোর গ্রেফতার ॥ চোরাই ল্যাপটপ উদ্ধার-
স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ শহরের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ৩ চোরকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার ও বুধবার রাতে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলো হবিগঞ্জ শহরের অনন্তপুর এলাকার বাসিন্দা বাবুল মিয়ার ছেলে ইকবাল মিয়া (২০), একই এলাকার বাদশা মিয়ার ছেলে আব্দুল মালেক (৩৫) ও হবিগঞ্জ সদর উপজেলার আশেঢ়া গ্রামের রনজিৎ চক্রবর্তীর ছেলে রাজু চক্রবর্তী (২৮)।
পুলিশ সূত্র জানায়, সম্প্রতি হবিগঞ্জ পৌর এলাকার বিভিন্ন স্থানে ৫/৬টি চুরির ঘটনা ঘটেছে। চোরেরা বাসা-বাড়িসহ বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে কয়েক লাখ টাকার মালামাল চুরি করে নিয়ে গেছে। গত ৩০ ডিসেম্বর সকাল সাড়ে ৬টার দিকে হবিগঞ্জ পৌর মার্কেটে মৃদুল টেলিকমে চুরি সংঘটিত হয়। চোরেরা তার দোকান থেকে স্মার্ট ফোন, ফিউচার ফোন, ল্যাপটপ, গ্রামীন ফোনের ট্যাব, মোবাইল মেরামতের ফ্লাস ডিভাইস, মেমোরী কার্ড, কাস্টমারদের মেরামতের জন্য দেয়া স্মার্ট ফোন ও নগদ টাকাসহ প্রায় ৩ লাখ টাকার মালামাল নিয়ে যায়। পরবর্তীতে শহরে সংঘটিত আরো কয়েকটি চুরির বিষয় উদঘাটনের জন্য পুলিশ শহরের চিহ্নিত চোরদের বিরুদ্ধে গ্রেফতার অভিযান পরিচালনা করে। মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার এসআই জাতিসংঘ পদকপ্রাপ্ত মোল্লা লুৎফুর রহমানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ হবিগঞ্জ আধুনিক হাসপাতাল এলাকার আম্বিয়া ভবনের সামন থেকে ইকবাল মিয়া ও আব্দুল মালেককে গ্রেফতার করে। তাদের স্বীকারোক্তিতে গতকাল রাত ৮টার দিকে চোরাই ল্যাপটপ বিক্রিকালে রাজু চক্রবর্তীকে গ্রেফতার করে পুলিশ।
হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার এসআই মোল্লা লুৎফুর রহমান জানান, গ্রেফতারকৃত ইকবাল মিয়ার বিরুদ্ধে ১২টি ও আব্দুল মালেকের বিরুদ্ধে ৭টি চুরির মামলা রয়েছে। তাদের স্বীকারোক্তি মতে রাজু চক্রবর্তীকে গ্রেফতার করা হয়। তার কাছ থেকে ১টি ল্যাপটপ উদ্ধার করা হয়। গ্রেফতারকৃত রাজুর বিরুদ্ধে ৬টি চুরির মামলা রয়েছে। ইকবাল ও মালেককে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে রিমান্ডের আবেদন করা হবে। আর রাজুকে থানায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

-