নারীদের আইনগত সেবা পাওয়া সহজ এবং নারী হয়রানী কমে আসবে-
নবীগঞ্জে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ জাগ্রত কমিটি গঠনের উদ্যোগ
স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জের বাহুবল ও নবীগঞ্জের দায়িত্বরত সার্কেল সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার পারভেজ আলম চৌধুরীর উদ্যোগে হতে যাচ্ছে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ জাগ্রত কমিটি। এ কমিটি গঠনের লক্ষ্যে নবীগঞ্জ থানার ওসি মোঃ ইকবাল হোসেনের সভাপতিত্বে, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও নারী উন্নয়ন ফোরামের সভাপতি নাজমা বেগমের সমন্বয়ে নবীগঞ্জ থানায় মতবিনিময় ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। নির্যাতিত নারীরা মৌখিক আইনগত সহযোগিতা এবং মামলা ছাড়াই আইনী পরামর্শ ও সহায়তা পাবেন। পুলিশের সহযোগিতায় দায়িত্ব পালন করবে কমিটির নারী নেতৃবৃন্দ। শিগগিরই কমিটি গঠন করে আনুষ্ঠানিক প্রকাশ করা হবে। সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার পারভেজ আলম চৌধুরীর উদ্যোগে হবিগঞ্জ জেলায় এই প্রথম এ ধরণের কমিটি হবে নবীগঞ্জ উপজেলায়। আলোচনার পর সর্বসম্মতিক্রমে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও নারী উন্নয়ন ফোরামের সভাপতি নাজমা বেগমের সমন্বয়ে নবীগঞ্জ পৌরসভার ৩ জন মহিলা কাউন্সিলর নিয়ে প্রথমে পৌরসভার ভেতরে কমিটি গঠনের মাধ্যমে যাত্রা শুরু হবে। প্রতিটি কমিটিতে ২৫ জন্য সদস্য থাকবেন। বাকি কমিটি যথাসময়ে গঠন করা হবে। এ কমিটিতে থাকবেন বিভিন্ন ক্যাটাগরির দক্ষ নারী কর্মীরা।
এবিষয়ে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার পারভেজ আলম চৌধুরী জানান, নারীদের সুবিধার্থে নারী বিষয়ক যে কোন অভিযোগ মৌখিকভাবে গ্রহন করে তাৎক্ষনিক আইনগত সহযোগিতা ও মিমাংসার ব্যবস্থা করা হবে। এছাড়াও যৌন হয়রানী রোধ, ইভটিজিং প্রতিরোধ, বাল্য বিবাহ রোধে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করবে এ কমিটি। উক্ত কমিটি হবে নিপীড়িত নির্যাতিত নারীদের জন্য। নারী নির্যাতন সম্পর্কিত মৌখিক অভিযোগসমূহ গ্রহণ করে সেগুলি সমাধানের জন্য জরুরীভাবে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করবে কমিটি। আর যেসব অভিযোগের নিস্পত্তি সম্ভব নয় সেগুলোর বিস্তারিত বিবরণে সংশ্লিষ্ট ধারায় মামলা রুজু করা হবে। সার্বিক সহযোগিতায় থাকবে পুলিশ প্রশাসন। এদিকে এ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাজমা বেগম বলেন নিপীড়িত নির্যাতিত নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে মানুষের বিবেক জাগ্রত করার জন্য এএসপি পারভেজ আলম চৌধুরী যে উদ্যোগ গ্রহন করেছেন সেজন্য তাকে তিনি অভিনন্দন জানান। তিনি বলেন, নিঃসন্দেহ তা প্রশংসনীয় উদ্যোগ। আমরা আশা করি তৃণমূল পর্যন্ত বহুমাত্রিক পদ্ধতিতে নির্যাতনের শিকার নারীদের পাশে দাঁড়িয়ে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও নির্মূলে অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে উক্ত কমিটি। আমরা বিশ্বাস করি এ কমিটির কার্যক্রমে নারীদের আইনগত সেবা পেতে সহজ হবে এবং নারী হয়রানী অনেকটা কমে আসবে।

-