নববর্ষের অঙ্গীকার হউক আমরা যেন মানবিক হই-
শামীম আহছান
দুঃখ ভারাক্রান্ত মন নিয়ে নববর্ষকে স্বাগত জানাতে হচ্ছে। গত বেশ কয়েক দিনের ঘটনায় মনটাকে শান্ত রাখা যাচ্ছে না। বিশেষ করে ফেনীর নুসরাতকে পুড়িয়ে মারার ঘটনাটি কিছুতেই মেনে নেয়া যাচ্ছে না। বিশেষ করে দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের নুসরাতের সাথে আচরণ একটা নূন্যতম সভ্য সমাজে আশা করা যায় না। এ পর্যন্ত তদন্ত হয়েছে তাতে স্পষ্ট প্রতীয়মান যে ঘটনার প্রথম দিকে ব্যবস্থা নিলে হয়ত আজ নুসরাতের এমন মর্মান্তিক পরিণতি হত না। এ ব্যাপারে মানবাধিকার কমিশন স্পষ্টতই আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর স্থানীয় কর্মকর্তার গাফিলতি আর অন্যায় আচরণের কথা উল্লেখ করেছেন। এমনকি গণমাধ্যম এবং স্থানীয় ব্যক্তিবর্গের কাছ থেকে এ ব্যাপারে প্রশাসনের চরম গাফিলতির কথা উঠে এসেছে। ভাবতে গেলে অবাক হতে হয় আমাদের কিছু সংখ্যক প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বশীল ব্যক্তিবর্গের এমন অমানবিক আচরণ কেন? আমরা কি মানবিক হতে আস্তে আস্তে ভুলে যাচ্ছি? এ ধরনের গাফিলতি আর অমানবিকতা কিন্তু এই প্রথম নয় অথচ আমরা উন্নয়ন, উন্নত বলে দাবি করছি সবসময়। উন্নয়ন বা উন্নত কি শুধুমাত্র অবকাঠামো? চারিত্রিকভাবে উন্নত না হলে সে উন্নয়ন কি টিকবে? এগুলো নিয়ে ভাবার সময় কিন্তু পার হয়ে যাচ্ছে। সবচেয়ে বিশেষ করে দায়িত্বশীল ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের অবহেলা বা গাফিলতির বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা না নিলে কিছু সংখ্যক ব্যক্তির জন্য প্রতিষ্ঠানের ভাবমূর্তির চরম অবনতি ঘটবে। যা মোটেই কাম্য নয়। আমরা বিশ্বাস করতে চাই আমাদের প্রতিষ্ঠানগুলোর বেশির ভাগ ব্যক্তি এখনও ভাল ও দায়িত্বশীল। এই সংখ্যাগরিষ্টের উচিত হল এ সমস্ত অপকর্মকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য করা। তা না হলে তারাও সমান অপরাধে অপরাধী হবেন। তাদের মনে রাখতে হবে তাদের সবকিছুই জনগণের জন্য। জনগণের ট্যাক্সেই তাদের বেতন ভাতা সুযোগ সুবিধা দেওয়া  হয়। বিগত বছরের এ সমস্ত অন্যায়, অমানবিকতা, নৃশংসতা, নিষ্ঠুরতা কি আমরা ঝেড়ে ফেলে নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে পারব? পারব কি আমাদের অমানবিকতাকে বদলে ফেলে মানবিক হতে পারব? না পারলে এত ঘটা করে নববর্ষ পালন কতটা উচিত তা ভেবে দেখা উচিত। নতুন বছরের প্রথম দিনে আমরা এত উচ্ছ্বাস, আনন্দ করি না কেন আমাদের নুসরাতদের কথা মনে রাখতে হবে। অন্তত এর জন্য হলেও আমাদের সবকিছুতে পরিমিতি বোধ থাকা উচিত। সাথে সাথে আমাদের বিগত বছরের সব ব্যর্থতাগুলো মনে রাখতে হবে। যাতে করে এ সমস্ত ব্যর্থতা, অপরাধ, অমানবিকতাগুলো আমরা যথাসম্ভব কমিয়ে এনে একটি মানবিক সমাজ গঠন করতে পারি। তা না করতে পারলে ঘটা করে এ সমস্ত অনুষ্ঠান শুধুই আনুষ্ঠানিকতা হয়ে থাকবে। জাতি হিসেবে আমরা শুধু ডুবতেই থাকব।
-