হবিগঞ্জে রমজানে সব্জির বাজারে দিগুন মূল্য আদায় ॥ ক্রেতাদের হিমশিম-
জুয়েল চৌধুরী ॥ রমজান মাসে হবিগঞ্জ শহরের সব্জি বাজারে অতিরিক্ত মূল্য আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তরি-তারকারী ক্রয়ে হিমশিম খাচ্ছেন নি¤œ মধ্যবিত্ত ক্রেতারা। ক্রেতাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, রমজানের আগের দিনও সব্জি যে  দামে বিক্রি হচ্ছিল বর্তমানে দ্বিগুন থেকে তিনগুন দাম আদায় করা হচ্ছে। আর নিত্য প্রয়োজনীয় সব্জি অনেকেই অসহায়ের মত অতিরিক্ত মুল্য  দিয়ে ক্রয় করতে বাধ্য  হচ্ছেন। গতকাল বিকেলে শহরের চৌধুরী বাজারে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় করলা ৬০-৭০ টাকা কেজি, শসা ৪০-৫০ টাকা,  বেগুন ৫০-৬০ টাকা, টমেটো ৩০-৪০ টাকা, জিঙ্গা ৪০-৫০ টাকা, এবং চিচিংঙ্গা ৫০-৬০ টাকা। বরবটি প্রতি কেজি ৫০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। যা রমজানের আগের দিনও ছিল বর্তমান মুল্যের চেয়ে অর্ধেক মুল্যে। কাচাঁ বাজারের বিক্রেতারা জানান, চাষাবাদের প্রয়োজনীয় উপকরন সহজলভ্য না হওয়ার কৃষকরা পর্যাপ্ত সব্জি উৎপাদন করতে পারছেন না। অন্যদিকে পরিবহন ও সংরক্ষণ বব্যস্থা সুষ্ঠ না থাকার ফলে উৎপাদিত ফসলাদি হিমাগারে সংরক্ষন করা যাচ্ছে না। আর তাই কাঁচা শাক-সব্জির দাম চড়াও।
কাঁচা বাজারে ক্রেতা আব্দুর রশিদ জানান, ‘অসাধু সব্জি ব্যবসায়ীরা সব্জিতে ফরমালিন ও বিষক্রিয়া মিশিয়ে একই সব্জি অনেক দিন মজুদ করে রাখে এবং প্রবিত্র রমজান মাসে তা চড়াও দামে বিক্রি করে। আমরা বাধ্য হয়েই এগুলো ক্রয়  করি’।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন কৃষক জানান, ‘পাইকার প্রতারণা করে আমাদের কাছ থেকে সব্জি ক্রয় করে। আমাদের বাজারের সঠিক মুল্য তালিকা সম্পর্কে ধারনা দিলে আমরা নায্য মুল্য পেতে পারি। অন্যথায় আমরা আমাদের কষ্টে অর্জিত মুল্য থেকে বঞ্চিত হই।
-