গৃহহীন ব্যক্তিকে ঘর দিলেন চুনারুঘাটের ওসি জীবিকা নির্বাহের জন্য দেয়া হয়েছে কাজও-
স্টাফ রিপোর্টার ॥ চুনারুঘাট থানার ওসি কেএম আজমিরুজ্জামানের মহৎ উদ্যোগের ফলে আয়াত আলী  নামে গৃহহীন এক ব্যাক্তি পেয়েছে নতুন ঘর। জীবিকা নির্বাহের জন্য পেয়েছে একটি কাজ। আর ৪ শিশু সন্তান স্কুলে ভর্তি হয়ে শুরু করেছে লেখাপড়া। আয়াত আলী উত্তর নরপতি গ্রামের বাসিন্দা।
চুনারুঘাট থানার ওসি কে এম আজমিরুজ্জামান জানান, ‘আমি প্রায় রাতেই বিভিন্ন এলাকায় টহল দিতে যাই। একদিন রাতে শ্রীকুটা এলাকায় টহল দিচ্ছিলাম। এ সময় রাস্তার পাশে বসেছিল এক লোক। কাছে গিয়ে জিজ্ঞেস করলে সে জানায় তার নাম আয়াত আলী। তার কোন কাজ নেই এবং বাড়িতে কোন বসত ঘর নেই। জীণর্ শীর্ণ-
একটি কুটিরে স্ত্রী, ২ ছেলে ও ২ মেয়ে সন্তানকে নিয়ে কোনভাবে রাত কাটায়। অর্থাভাবে বাচ্ছাদেরকে স্কুলে দিতে পারেনি। তার এই দুঃখের কথা শুনে কিছু একটা করার চিন্তা করি। পরে উত্তর নরপতি গ্রামের বিশিষ্ট শিল্পপতি আব্দুল মালেক এর সাথে যোগাযোগ করে বিষয়টি জানালে তিনি সহযোগিতার হাত বাড়ান। তার সহায়তা নিয়ে ৩ রুমের একটি বাড়ি তৈরি করি। পাশাপাশি আব্দুল মালেক এর বাড়িতে ৮ হাজার টাকা মাসিক বেতনে কেয়ারটেকারের চাকুরী প্রদান করা হয়। আর তার ৪ শিশুকে ভর্তি করা হয় স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে।
শুক্রবার দুপুরে আনুষ্ঠানিকভাবে নতুন ঘরটি হস্তান্তর করা হয় আয়াত আলীর কাছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ওসি কে এম আজমিরুজ্জামান, শিল্পপতি এম এ মালেক, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী বাবুল মিয়া, মুসলিম মিয়া সহ আরো অনেকে।
আয়াত আলী নতুন ঘর পেয়ে আনন্দে আত্মহারা। মাথাগুজার ঠাই করে দেয়ার জন্য সে ওসি কে এম আজমিরুজ্জামান ও  শিল্পপতি এম এ মালেক এর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে।
ওসি কে এম আজমিরুজ্জামান  বলেন, সরকারি দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি এ ধরনের মানবিক কাজ করতে পারলে মানসিকভাবে তৃপ্তি পাই। এর আগেই একই এলাকার মাদক স¤্রাট কামাল মিয়াকে উদ্যোগ নিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনার সফল হয়েছি। কামাল মিয়াকে একটি হোটেল করে দিয়েছিলাম। সে এখন সেখানে ইফতারীসহ বিভিন্ন খাবার তৈরি করে বিক্রি করে পরিবারের ব্যয় নির্বাহ করছে। সে মাদক ব্যবসা ছেড়ে দিয়ে ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়ছে।
-