সাংবাদিক ও পুলিশের সহায়তায় ৩ শিশুকে পরিবারের নিকট হস্তান্তর-
স্টাফ রিপোর্টার ॥ অবুঝ ৩ শিশুকে রাস্তায় কাঁদতে দেখে তাদের ঘিরে অনেক লোকজন ভিড় জমিয়েছে। শিশুদের ঘিরে রেখেছে পথচারিসহ অসংখ্য লোকজন। মানুষের কৌতুহল এত অল্প বয়সে ৩ শিশু কিভাবে এল, কি-বা তাদের পরিচয়। শিশুরা শুধুই কাঁদছে। তাদের বয়স ২ থেকে ৫ বছর হবে। বড় শিশুটি কথা বলতে পারে। সে জানায়, তাদের বাড়ি বাহুবলের শংকরপুরে। এসেছে মার সঙ্গে নানার বাড়িতে বেড়াতে। নানা বাড়ি রামপুরে আর কিছুই বলতে পারে না। এ অবস্থায় সাংবাদিক মুজিবুর রহমান এর নজরে আসে তাদের। মোবাইলে যোগাযোগ করেন থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মাসুদ আলীর সাথে। তাৎক্ষণিক তিনি একজন এসআই ও দুইজন কনস্টেবল পাঠিয়ে দেন। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল শুক্রবার সকাল ১০ ঘটিকায় শহরের শ্যামলীতে সাধুর সমাধি সংলগ্ন এলাকায়। শিশুদের কথা শুনে এসআই সাইদুর রহমানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ পিকআপ ভ্যানে করে ৩ শিশুদের নিয়ে রওনা হন রামপুরে উদ্দেশ্যে। সেখানে পৌঁছলে ওখানকার লোকজন ৩ শিশুকে চিনে ফেলে। পরে অভিভাবকের নিকট তাদের নিয়ে যাওয়া হয়। তখন এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। তাদের মা নানা নানিসহ আত্মীয়স্বজন স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলে। হারিয়ে যাওয়া ৩ শিশুকে বুকে টেনে নিয়ে চুমু থেতে থাকে ও তাদের জড়িয়ে বিলাপ করতে থাকে। আমাদের বুকের ধন ফিরে এসেছে। তারা পুলিশ বাহিনী ও সাংবাদিকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।
-