মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে-
হবিগঞ্জ জেলায় সাম্প্রতিককালে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান প্রায় নিয়মিতভাবেই করা হচ্ছে। প্রতিদিনই বিভিন্ন স্থানে এই অভিযান চলছে। অবৈধ বালু উত্তোলন, মেয়াদোত্তীর্ণ খাবার, ফরমালিন যুক্ত ফলমূল, অবৈধ দখল উচ্ছেদ প্রভৃতি কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। জনমনে এই অভিযান নিয়ে এ ধরণের স্বস্তি রয়েছে। তারা মনে করেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানের পরিধি আরো বাড়ানো উ”িত। আইন অমান্যের বিরুদ্ধে কার্যাক্রম অব্যাহত রাখতে হবে বলে সকলে মনে করেন। আমাদের দেশে আইনের সংখ্যা কম নয়। কিন্তু আইন প্রয়োগের হার খুবই কম। গতকাল লাখাই উপজেলায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে মেয়াদ উত্তীর্ণ ইনজেকশন বিক্রির জন্য একটি ফার্মেসিকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে মর্মে দৈনিক খোয়াইয়ে খবর প্রকাশিত হয়। খবরটি উদ্বেগজনক। কারণ বিভিন্ন বিষয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান হলেও জীবন রক্ষাকারী ওষুধ নিয়ে এ পর্যন্ত কোনও অভিযান হয়নি। তাই লাখাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার এই অভিযানকে আমরা স্বাগত জানাই। জীবন রক্ষাকারী ওষুধ নিয়ে কোনও ধরণের অবহেলা প্রশ্রয় দেয়া যাবে না। এ বিষয়ে কঠোর ভূমিকার বিকল্প নেই। সর্কল ফার্মেসীদের নির্দেশ দিতে হবে তারা যেন কোনও মেয়াদোর্ত্তী ওষুধ বিক্রি না করেন। এমন হলে শুধু জরিমানা নয়, প্রয়োজনে লাইসেন্স স্থগিত বা বাতিল করতে হবে। এমনিতে, মেয়াদোত্তীর্ণ, ভেজাল খাদ্যে আমরা বিধ্বস্ত। তার উপর এখন মেয়াদোত্তীর্ণ ইঞ্জেকশন বা ওষুধ নিতে হলে আমাদের অবস্থা কি হবে তা ভাবাই যায় না। আমরা আশা করবো লাখাই উপজেলার দৃষ্টান্ত অনুসরণ করে হবিগঞ্জ জেলাসহ অন্যান্য উপজেলার ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে।

-