করোনা গ্যারাকলে অনাহারে চুনারুঘাটের চা শ্রমিকরা-
স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জের সকল চা বাগানের শ্রমিকরা যখন করোনা ভাইরাস এর কারনে কাজ বন্ধ করার দাবী জানিয়ে আসছেন তখন চুনারুঘাট উপজেলার রেমা চা-বাগনে ২৪ দিন ধরে কাজ না থাকায় অনাহারে দিন কাটাচ্ছেন শ্রমিকরা। শ্রমিকদের সাথে বিরোধের কারনে বাগান বন্ধ করে চলে গেছে বাগান কর্তৃপক্ষ। সরকারিভাবে বিরোধ নিস্পত্তির উদ্যোগ নেয়া হলেও এখন করোনার গ্যাড়াকলে বিরোধ নিস্পত্তির কোন সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ৫ মার্চ রেমা বাগানের ব্যবস্থাপকের সাথে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয় কয়েকজন চা- শ্রমিকের। এতে বাগানের ব্যবস্থাপক ও সহকারী ব্যবস্থাপক গুরুতর আহত হন।  কর্তৃপক্ষ সৃষ্ট বিরোধের কারনে বাগান বন্ধ করে দিয়ে বাগান তালা দিয়ে চলে যায়। এরপর থেকে চা শ্রমিকরা কর্মহীনতায় রয়েছেন। তারা চিকিৎসা সেবা, রেশনসহ অন্যান্য সকল সুযোগ-সুবিধা থেকেও বঞ্চিত রয়েছেন। ফলে এই চা-বাগানের শ্রমিকদের জীবনে নেমে এসেছে অবর্ণনীয় দুর্ভোগ ও অভাব-অনটন।
চা শ্রমিক ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দ রেমা বাগানের শ্রমিকদের পাশে দাড়িয়ে আন্দোলনের হুমকি দিলেও করোনার কারনে তারা কোন কর্মসূচি দিতে পারেনি। পরে শ্রম অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মালিক ও শ্রমিক পক্ষকে নিয়ে গত ২৪ মার্চ বেঠক আহবান করেন। কিন্তু মালিক পক্ষ শেষ মুহুর্তে আসতে অপারগতা দেখালে সেই উদ্যোগ ভেস্তে যায়।
এদিকে শনিবার জেলা প্রশাসকের উদ্যোগে রেমা চা বাগানের শ্রমিকদেরকে নগদ ১শ’ টাকা এবং সবার মাঝে ৩ টন চাউল বিতরণ করা হয়। সেখানে নিয়মিত শ্রমিক রয়েছেন ৪৫৮জন। ফলে প্রত্যেক পরিবার সাড়ে ৬ কেজি করে চাউল পায়। যা দিয়ে তাদের পক্ষে পরিবারের ব্যয় পরিচালনা সম্ভব হচ্ছে না।
চা শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক নৃপেন পাল জানান, চা শ্রমিকরা যদি অন্যায় করে তাহলে অবশ্যই তার বিচার হবে। কিন্তু  সরকারি লিজ এবং শ্রমিকদের সাথে চুক্তির শর্ত অনুযায়ী কেউ এভাবে বাগান বন্ধ করতে পারে না। আলোচনায় বসলেই বিষয়টির সমাধান হত। কিন্তু মালিক পক্ষ বিভিন্ন অজুহাতে প্রশাসনের আহবানে সাড়া দিচ্ছে না। যদি বিষয়টির দ্রুত সমাধান না হয় তাহলে আমরা সকল বাগানেই কর্মসূচি দিতে বাধ্য হব।
চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সত্যজিৎ রায় দাস জানান, শ্রম অধিদপ্তর এর পক্ষ থেকে শ্রমিক ও মালিক পক্ষকে নিয়ে বসার কথা ছিল। কিন্তু শেষ মুহুর্তে তা বাতিল হয়েছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমরা শ্রমিকদেরকে সহযোগিতা করেছি।
হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান জানান, বিষয়টি সমাধানের জন্য আমরা চেষ্টা করছি। যেহেতু বাগানটি বেসরকারি এবং মালিক পক্ষ আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছে তাই তাদেরকে বোঝাতে একটু সময় লাগছে।
শ্রীমঙ্গলস্থ শ্রম অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক নাহিদুল ইসলাম জানান, আমরা ২৪ মার্চ বসার জন্য বললে মালিক পক্ষ জানায় তাদের ম্যানেজার ও সহকারি ম্যানেজার আহত হয়ে চিকিৎসাধীন। আর করোনার জন্য ঢাকা থেকে উর্ধ্বতন কেউই আসতে পারবে না। তাই সেদিন বসা সম্ভব হয়নি। আর মালিক ও শ্রমিক পক্ষ কেউ কারও সাথে যোগাযোগ করেনি। ফলে দুরত্ব থেকেই যায়। আমি ২৫ মার্চ উভয় পক্ষকে পত্র দিয়েছি যাতে তারা নিজেদের মাঝে যোগাযোগ করতে পারে। তবে করোনার জন্য বসার ব্যবস্থা করা সম্ভব হচ্ছে না।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রেমা চা বাগানের এক কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমরা শ্রমিকদেরকে কাজে যোগ দিতে বলেছি। শুধুমাত্র ঘটনার সাথে জড়িতদেরকে বাদ দিয়ে আসতে বলা হয়েছে। তারা চায় মামলা তুলে নিতে। মামলা নিজ গতিতে চলবে। কিন্তু তারা আসছে না। আমরা বাগান চালুর জন্য মন্ত্রীসহ প্রশাসনকে পত্র দিয়েছি। আমাদের কর্মকর্তারা স্থানীয় প্রশাসন থেকে নিরাপত্তার নিশ্চয়তা চায়।

-